মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

মামলার আবেদন

মামলার আবেদন করার নিয়মঃ
১। যে ইউনিয়ন পরিষদের নিকট আবেদন করা হবে সে ইউনিয়ন পরিষদের নাম ঠিকানা 
    থাকতে হবে।
২। আবেদনকারী এবং প্রতিবাদীর নাম,ঠিকানা ও পরিচয় থাকতে হবে।
৩। সাক্ষী থাকলে সাক্ষীর নাম,ঠিকানা ও পরিচয় থাকতে হবে।
৪। ঘটনা,ঘটনা উদ্ভবের কারণ,ঘটনার সথান ও ইউনিয়ননের নাম,সময়,তারিখ থাকতে হবে।

৫। নালিশ বা দাবির ধরন,মূল্যমান থাকতে হবে।
৬। ক্ষতির পরিমাণ,প্রার্থিত প্রতিকার থাকতে হবে।
৭। সাক্ষীদের ভূমিকা থাকতে হবে।
৮। মামলা বিলম্বে দায়ের করা হলে তার কারণ উল্লেখ থাকতে হবে।
৯। আবেদকারীর সাক্ষর থাকতে হবে।
১০। মামলা দায়েরের তারিখ থাকতে হবে।

 একটি মামলার আবেদনের নমুনা দেওয়া হলোঃ-

বরাবর,

            চেয়ারম্যান গ্রাম আদালত,

            6নং জোতবানী ইউনিয়ন পরিষদ,

            বিরামপুর,দিনাজপুর।

বিষয়ঃ আমার খরিদা জমি জোর পূর্বক দখল হতে শরিয়া পাইবার জন্য আবেদন।

     বাদী                                       বিবাদী                                           স্বাক্ষী

মোঃ মজনুর রহমান,             1। মোঃ রেজাউল ইসলাম,                  1। মোঃ মিঠন মন্ডল,

 পিতাঃ মৃতঃ আফা উদ্দিন,       পিতাঃ মোঃ পানা উল্যাহ মন্ডল,          পিতাঃ গিয়াস উদ্দিন, 

 গ্রামঃ কসবাসাগরপুর,          2। মোঃ এমাজ উদ্দিন,                       2। মোঃ আইজুল ইসলাম, 

ডাকঘরঃ শিবপুর,                   পিতাঃ আবুল হোসেন,                         পিতাঃ খাটু মন্ডল,   

বিরামপুর,দিনাজপুর।        উভয় সাং-একইর,ডাকঃএকইর,           উভয় সাং-কসবাসাগরপুর,

                                        বিরামপুর,দিনাজপুর।                             ডাকঃশিবপুর,

                                                                                               বিরামপুর,দিনাজপুর।  

জনাব,

            সম্মান র্পূবক আমি লিখিত অভিযোগ প্রদান করিতেছি যে,বিবাদীগন আমার নিকট বিগত 30-07-2016

ইং তারিখে 50,000/-(পঞ্চাশ হাজার) টাকা কর্য বাবদ বাবদ গ্রহন করেন। এবং বলেন কয়েকদিন পরে আমি

তোমার টাকা ফেরত দিয়েযাব।অদ্য তারিখ হতে বিগত 04-08-2017 ইং তারিখে অনেক বিচার শালিশের পর

বর্ণিত সাক্ষীগনের স্বাক্ষাতে দেওয়ারপ্রতিশ্রুতি দিয়ে দিন ধায র্করেন। তারপর ও আমি আমার পাওনা টাকার

চাপ দিতে থাকি। কিন্তু কোন ফল হয় না।স্বাক্ষীগন বিস্তারিত সব শুনে আমাদের উভয়পক্ষকে ডাকলেন

আমরা উভয় পক্ষ উপস্থিত হলাম।আমার নিকটটাকার বিষয়টি জানতে চাইলে আমি সব বিস্তারিত ভাবে

বলি। স্বাক্ষীগন উভয়ের মুখে বনর্না শুনে মিমাংসা সুত্রেূকর্য্ টাকা অনেক দিন ধরেপড়ে থাকার কারনে 50,000/-

(পঞ্চাশ হাজার) টাকা গত 04-08 2017 ইং দি ধায্যকরেন। তারপর হইতে আমি স্বাক্ষীগনের কথায় চুপচাপ করিয়া

থাকি। ধায্য তারিখ পাওয়ার পর আমি বিবাদীনিকট টাকা চাইতে গেলে তারা তাল-বাহানা করে দিন পার

করিতেছেন।এ ছাড়া আমি তাদেরকে পাওনাটাকার চাপ দিলে বিবাদীগন আমাকে বিভিন্ন ধরনের

অসভ্য আচরনে গালি-গালাজকরেন। আমি নিরুপাইহইয়া অত্র গ্রাম আদালতে বিচার প্রার্থী হইলাম ।

হুজুর আমি একজন গরিব মানুষ আমার অতি কষ্টে টাকাজমাইয়াছি। এ সম্পদ ছাড়া আর কোনো উপায়

নেই। আমার নিকট কর্য্য নেওয়া টাকা দিতে কেন এতোবিলম্বও গাফলাতি আমি তার প্রতিকার চেয়ে

আবেদন করিলাম।

 

            অতএব,হুজুর অত্র আবেদনের বিষয়ের প্রক্ষিতে সু-নজর দিয়া আবেদন গ্রহন পূর্বক যাচাই-বাছাই

করিয়া বিচার সম্পাদন করিতে আপনার মর্জি হয়।

 

   দাতাকৃতঃ টাকার পরিমানঃ আসল-50,000/-                                                                                                                                                                                                                                                        নিবেদক

সংযুক্ত কাগজপত্র অবগত করা হলোঃ-                           মোঃ আলিম উদ্দিন, 

1। আবেদন -1 কপি।                                                        পিতাঃ আইম উদ্দিন, 

 2। ডকুমেন্ডফট-3 কপি।                                              সাং ধনসা,ডাকঘরঃ একইর,

                                                                                      বিরামপুর,দিনাজপুর।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter